‘‘সেখান থেকে অল্প একটু আকাশ দেখা যায়…’’ – নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী

0
1066

আত্মপক্ষ – অর্ণা শীল
মূলস্রোতের শিল্পকলা এখন বিশ্বজোড়া বিনোদনের মাচায় নাচে গানে মাতিয়ে তুলছে সক্কলকে। পুঁজিবাদী দুনিয়াতে যেমন দস্তুর, রুটী-রুজির তাগিদে আমরা সকলেই এখন পণ্য। শুধুমাত্র ভারতবর্ষকেই যদি আমরা দৃষ্টান্ত হিসেবে সামনে রাখি তাহলে দেখতে পাবো যে একা ‘বলিউড’ নামক একটি ‘লক্ষণ’ শিল্পকলা, সংস্কৃতি, ভাষা ও বোলচালের একটি রীতি শুধু নির্মাণ করেছে তা নয়, দেশ-বিদেশ জুড়ে অসংখ্য মানুষকে তার ক্রেতা করে তুলতে সফল হয়েছে এবং নিরন্তর বিনিয়োগের সুবাদে সমস্ত গণমাধ্যমকে দখল করে নিয়েছে। পুঁজিবাদী বিশ্বায়নের সুদূরপ্রসারী ও পরাক্রমশালী এই বিশাল শক্তির সামনে বিকল্প কোনও পরিসর তৈরি করার প্রচেষ্টাকে নিতান্তই বোকামো ছাড়া আর কিছু আখ্যা দেওয়া যায় না এখন। আশ্চর্যের ব্যাপার এই যে, ২০১৫ সাল থেকে মিউজিয়ানা এই ‘বোকামোটি’ করে চলেছে। যে সময় মোটা দাগের হৈ-হুল্লোড়ের বাইরে বেশীরভাগ শ্রোতা তেমন কিছু শুনতে বা দেখতে চান না, যে সময় মনের ভেতরে সূক্ষ্ম অনুভূতিগুলোকে নাড়া দেবার তাগিদ বোধ করছেন না অনেকেই, যে সময় হোটেল রেস্তোরা সেলুন থেকে শুরূ করে রেডিও আর টেলিভিশন থেকে নির্বাসন দেওয়া হয়েছে বাংলা গানকে, যে সময় গান-কবিতা-নাটকের চেয়ে প্রসাধন সামগ্রীর বেশী কদর, সেই সময় এই ‘বোকামোটি’ করার একমাত্র তাগিদ, এই আকালেও কিছু অন্য মন ও মননের শ্রোতা ও দর্শকদের সান্নিধ্য লাভ এবং  মূলস্রোতের কাজের পাশাপাশি নিজেদের মনের কাছের শিল্পকলাকে তুলে ধরা … এমন এক পরিসর তৈরি করা, যেখানে প্রতিষ্ঠিত শিল্পীদের পাশাপাশি নবীন শিল্পীরাও আসবেন। আমাদের কাছে আমাদের সাফল্য বা ব্যর্থতার কোনও মাপকাঠি নেই। এই কারণেই নেই যে আর দ্বিতীয় কোনও অনলাইন প্লাটফর্ম এই কাজ করেন না। তাই সাফল্য বা ব্যর্থতার কথা না ভেবে কাজ করে যাই আমরা। ২০১৮’য় আমাদের এই কাজেরই দিনলিপি তুলে ধরলেন অনির্বাণ।

ফিরে দেখা – ২০১৮’য় মিউজিয়ানা
অনির্বাণ মজুমদার

বেঁধে বেঁধে থাকি
২০১৮’য় আমাদের ইউটিউব চ্যানেলের নাম মিউজিয়ানা থেকে বদলে মিউজিয়ানা কালেক্টিভ করা হল। নিজেদের প্রযোজনার পাশাপাশি অন্যান্য প্রযোজনার জন্য পরিসর গড়ে তোলাই এই বদলের মূল লক্ষ্য। একসঙ্গে একজোট হয়ে কাজ করতে পারলে এই আস্তে আস্তে হারিয়ে-যাওয়া গান কবিতা গল্প আবার পৌঁছে যাবে মানুষের কাছে, এইরকম একটা বিশ্বাস থেকেই মিউজিয়ানা কালেক্টিভের শুরু।২০১৮’র গোটা বছরে আমাদের Youtube চ্যানেল থেকে প্রকাশিত হয়েছে ৮২টি ভিডিও। নানান রঙের গান কবিতা কথোপকথন গল্প এই বিস্তৃত পরিসরের দোসর হয়ে উঠেছে।

নতুন নতুন
২০১৮ তে মিউজিয়ানা কালেক্টিভের ইউটিউব থেকে আমরা প্রকাশ করেছি নতুন প্রজন্মের শিল্পীদের বাংলা গান। ইতিমধ্যেই এক লক্ষ ৪৫ হাজার শ্রোতা শুনেছেন সেই গানগুলি। রবীন্দ্রনাথের বিষণ্ণতা নিয়ে আকাশ, শ্রবণা ও সুস্মিতার কাজ ‘বেদনার জল’
গৌরব সরকারের চারটি  মৌলিক বাংলা গান (একটি নীচে দেওয়া হল),
ঋতজা, শবনম সুরিতা ডানা ও অরুণাশিস রায়ের প্রথম রবীন্দ্রসঙ্গীত ভিডিও থেকে শুরু করে, শুভাশিস মুখোপাধ্যায়ের হাত ধরে মিউজিয়ানা কালেক্টিভের সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন একঝাঁক মৌলিক বাংলা গানের নতুন শিল্পীরা। এসেছেন স্নিগ্ধদেব তার নতুন গান, নভোনীল তার মার্গ সঙ্গীতের উপস্থাপনা নিয়েও।
ওদের সঙ্গে এসেছেন আরো অনেকে … কেউ প্রতিষ্ঠিত, কেউ নবাগত – কিন্তু সকলেই মেলে ধরেছেন তাদের নতুন কাজ।

 

কবিতা, চর্চা, শেখা
সুমন্ত্র সেনগুপ্ত, দিতিপ্রিয়া মুখোপাধ্যায়, মেধা বন্দ্যোপাধ্যায় ও শ্রবণা … এরা  মিউজিয়ানা কালেক্টিভে  নিয়ে এসেছেন তাদের কবিতা। মিউজিয়ানার মৌলিক প্রযোজনায় আমরা পেয়েছি খায়রুল আনম শাকিলের  নজরুলগীতির চর্চা,

রেজয়ানা চৌধুরী বন্যার স্মৃতিচারণ, একাত্তরের জাগরণের গান,
পণ্ডিত শুভঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের তবলা,
ডঃ রাজীব চক্রবর্তীর সরোদের ‘মাস্টার ক্লাস’ , শুভমিতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঠুংরি ও এমন অনেক রত্নের সম্ভার।

 

বিকিকিনি
এই প্রজন্মের আর এক গুণী শিল্পী পায়েল করের অকুণ্ঠ সহযোগিতায় চেষ্টা হয়েছে বাঙালির গান কেনার পুরনো অভ্যেসকে ফিরিয়ে আনার ।
এই প্রচেষ্টায় তারপর একে একে এগিয়ে এসেছেন গৌরব সরকার, শুভাশিস মুখোপাধ্যায়, মোনালিসা ও মেধা বন্দ্যোপাধ্যায় (কবিতা), তারপর তাদের পূজোর গান নিয়ে রূপঙ্কর, রাঘব ও শ্রীকান্ত আচার্য। বহু মানুষ এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে এই সব গান ‘কিনে’ শুনেছেন, আর তাদের এই ভাবে পাশে-থাকা’টা অনেকটাই সাহস জুগিয়েছে আমাদের।  সেই সাহস থেকেই মিউজিয়ানা কালেক্টিভ আনতে চলেছে নতুন প্ল্যাটফর্ম musiana miles। এখানে সুযোগ থাকবে বাংলা ভাষা সংক্রান্ত গান, কবিতা, গল্প, বই, পত্রিকা এবং আরো অনেক কিছু মূল্য দিয়ে কেনার। এখানে থাকবে যে কোনও অনুষ্ঠানের অনলাইন টিকিট কেনার ব্যাবস্থাও।পুজোর গানের প্রচারে আমরা পাশে পেয়েছি যথাক্রমে আমার ১০৬.২ এফএম, বং ইটস ইউটিউব চ্যানেল ও গড়িয়াহাট হিন্দুস্তান ক্লাবকেও। তাদের অশেষ ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

 

গপ্পো
কথ্য গল্পের আঙ্গিককে ফিরিয়ে আনতে ২০১৮-য় শুরু হয়েছে ‘গপ্পো’ সিরিজ। প্রতি রবিবার, একটি করে গল্প। উপেন্দ্রকিশোর, সুকুমার রায় থেকে শুরু করে বাদ যাননি রূপকথার প্রবাদপুরুষ হান্স ক্রিস্টিয়ান অ্যান্ডারসনও। কথকের ভূমিকায় গান, চলচ্চিত্র, কবিতা, নাটকের দুনিয়ার বিশিষ্ট বন্ধুরা। সামিল হয়েছেন শ্রীকান্ত আচার্য, খরাজ মুখোপাধ্যায়, ব্রততী বন্দ্যোপাধ্যায়, রেশমী সেন, জহর দাশ, উজ্বল মালাকার, , শুভান্বিতা গুহ, দেবাংশু ও  ইন্দ্রাণী মুখোপাধ্যায়(মুক্তা)। বিনা পারিশ্রমিকে তারা কাজ করেছেন কেবলমাত্র এই প্রচেষ্টাকে ভালোবেসে। খরাজ মুখোপাধ্যায় কথিত কাকার গল্প দেখেছেন/শুনেছেন ৬ লক্ষ ৫৭ হাজার ১৫৩ জন। বাংলা ভাষার এই নিদারুণ অসময়েও এমন ঘটনা মনে আশার আলো জাগায় অবশ্যই। নতুন বছরে আসছে নতুন গল্পের সিরিজ।

 

বক্‌বক্‌ ব্লগ
২০১৮য় মিউজিয়ানা কালেক্টিভের আরেকটি পরিশ্রমী প্রচেষ্টা www.musianacollective.org ব্লগ। । এক বিস্তৃত পরিসর দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছে ব্লগটিকে।শিল্পীদের কাজের খবরের সঙ্গে সেখানে মিশেছে গান সম্পর্কে ইতিহাসভাবনা, শিল্পবোধের চর্চাও। এখানে নতুন প্রজন্মও তাদের মতামত রেখেছে বিভিন্ন বিষয়ে। বিশেষভাবে উল্লেখ্য ‘যদি বল রঙিনের‘ ভূমিকা ও গ্রন্থন সেনগুপ্ত, কৃষ্ণজিত সেনগুপ্ত ও শবনমের লেখাগুলি।

 

মুখোমুখি
অন্তর্জালের বৃত্তের বাইরে সারা বছর ধরে চলেছে আমাদের নানান কর্মকাণ্ড। ব্রততী পরম্পরার সঙ্গে যুগ্মভাবে শ্রীকান্ত আচার্যের পরিচালনায় শুরু হয়েছে সঙ্গীত শিক্ষার পাঠক্রম ‘আরোহ’। ২৫শে বৈশাখ উপলক্ষে ১০ই মে, ২০১৮তে মিউজিয়ানার আয়োজনে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ত্রিগুণা সেন মঞ্চে অনুষ্ঠান ‘শুভখন হঠাৎ এলে।‘  রবীন্দ্রনাথের গান,কবিতা ও গদ্যপাঠের এই আসরে উপস্থিত হলেন রত্না মিত্র, শ্রীজাত এবং শ্রীকান্ত আচার্য। ১১ই অগস্ট উত্তম মঞ্চে মিউজিয়ানা সামনে নিয়ে এসেছে বন্ধু লোপামুদ্রা মিত্রের সঙ্গে মানুষ শ্রীকান্ত আচার্যকে ‘ইতি শ্রীকান্ত’ অনুষ্ঠানে। নতুন বছরে (২০১৯) আমাদের প্রথম নিবেদন ‘ফুল ফুটুক না ফুটুক,’ ১১ই জানুয়ারী, উত্তম মঞ্চে। এখানে কবিতা,গান ও আড্ডা নিয়ে একসঙ্গে মঞ্চে থাকবেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, শ্রীকান্ত আচার্য এবং শ্রীজাত।

 

মুঠোফোনে মিউজিয়ানা
মিউজিয়ানার সঙ্গে যুক্ত হওয়ার আরো সহজ উপায়ও আসছে এই বছরে। শুধুমাত্র আপনার Whatsapp এ আপনি সাবস্ক্রাইব করে রাখতে পারবেন মিউজিয়ানা কালেক্টিভকে।সমস্ত প্রযোজনা, ব্লগ এবং অনুষ্ঠানের সঙ্গে আপনার যোগাযোগ ঘটিয়ে দেওয়া হবে Whatsapp-এর এই চ্যানেল থেকে।

 

গোপন কথাটি
আরও কিছু নতুনের কথা উহ্যই থাকল না হয়। বলার কথা শুধু এই যে কবি নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তীর কবিতা থেকে নেওয়া এই লেখার শিরোনাম আমাদের বিশ্বাস যোগাক। মিউজিয়ানা হয়ে উঠুক আমাদের জীবনের ‘অল্প একটু আকাশ।‘ নতুন বছরে আমাদের চাওয়া এইটুকুই।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here